বিশালাক্ষী সতীপীঠ, ৫১ সতীপীঠ পর্ব – ৬

মার্চ ১৯, ২০২২ রাত ০৯:৪১ IST
6235fe50ab959_bishalakkhi

বিশালাক্ষী সতীপীঠ

বিশালাক্ষী সতীপীঠ মন্দির উত্তরপ্রদেশের বারাণসী বা বেনারসে । এই মন্দির একটি পবিত্র স্থান এবং ৫১ শক্তিপীঠের অন্যতম পীঠস্থান । পুরাণ মতে দেবী সতীমায়ের কানের দুল বা চোখ পড়েছিল ।

ইতিহাস – পৌরাণিক তথ্য অনুসারে সত্য যুগের কোনও এক সময়ে মহাদেবের উপর প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য দক্ষরাজ এক মহাযজ্ঞের আয়োজন করেছিলেন । দক্ষরাজের কন্যা সতী দেবী তাঁরই ইচ্ছার বিরুদ্ধে 'যোগী' মহাদেবকে বিবাহ করায় দক্ষরাজ নিজের কন্যার প্রতি ক্ষুব্ধ ছিলেন । দক্ষরাজ মহাদেব ও সতী দেবীকে ছাড়া তাঁর অনুষ্ঠিত মহাযজ্ঞে প্রায় সকল দেব-দেবীকেই নিমন্ত্রণ করেছিলেন । মহাদেবের অনিচ্ছা সত্ত্বেও সতী দেবী মহাদেবের অনুসারীদের সঙ্গে নিয়ে সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন । কিন্তু সতী দেবী আমন্ত্রিত অতিথি না হওয়ায় তাঁকে চরম অপমানিত করেন দক্ষরাজ । শুধু এই নয় সতী দেবীকে সামনে রেখে দক্ষরাজ মহাদেবের নিন্দা করেন ভরা সভায় । সতী দেবী তাঁর স্বামীর প্রতি পিতার এহেন অপমান সহ্য করতে না পেরে যোগবলে আত্মাহুতি দেন । শোকাহত মহাদেব রাগান্বিত হয়ে দক্ষরাজের যজ্ঞ নষ্ট করেন এবং সতী দেবীর মৃতদেহ কাঁধে নিয়ে বিশ্বব্যাপী তান্ডব নৃত্য শুরু করেন । এই তান্ডব নৃত্যের কারণে ধ্বংসলীলা শুরু হয় সমগ্র বিশ্বে । প্রলয় থামাতে ভগবান বিষ্ণু দেবী সতী মায়ের দেহ সুদর্শন চক্রের সাহায্যে খন্ডিত করেন । সেই দেহখন্ড ভারতীয় উপমহাদেশের বিভিন্ন স্থানে পড়ে, এবং স্থানগুলো পরবর্তীতে পবিত্র পীঠস্থান তথা শক্তিপীঠ হিসেবে পরিচিত হয় । উত্তরপ্রদেশের বারাণসী বা বেনারসের এই স্থানে দেবী সতীমায়ের কানের দুল বা চোখ পড়েছিল । তাই এই পীঠস্থান নাম বিশালাক্ষী সতীপীঠ । 

বর্তমানে- বিশালাক্ষী মন্দিরের তাৎপর্য বিশালাক্ষী মাকে পূজা দেওয়ার ঠিক আগে ভক্তরা গঙ্গার পবিত্র জলে স্নান করেন । ভক্তরা বিশ্বাস করেন যে দেবীকে পূজা, জল দেওয়া, গান জপ করা এগুলোতে দেবী সন্তুষ্ট হন । কাজলী তিজ, ভারতীয় মহিলাদের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হিন্দু উৎসব, বিশালাক্ষী মন্দিরে খুব আনন্দের সাথে পালিত হয় । ভক্তরা অক্টোবর মাসে এই মন্দিরে নবরাত্রি উদযাপন করার পাশাপাশি মহিষাসুরে উপর দেবী দুর্গার বিজয় উদযাপন করে । তারা চৈত্র মাসে আলাদা নবরাত্রি উদযাপন করে । প্রতি ৯ দিনে তারা নবদুর্গার নয়টি আলাদা রূপের দুর্গার পূজা করে । বিশালাক্ষী মন্দিরটি প্রতিদিন সকাল ৫ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত খোলা থাকে । 

কিভাবে যাবেন?

শ্রী কাশী বিশালাক্ষী মাতা শক্তিপীঠ মন্দির, গণপতি গেস্ট হাউস মীর ঘাটের কাছে কাশী লাহোরি টোলা, বারাণসী, উত্তর প্রদেশ ২২১০০১ ।

আরও পড়ুন

অনেকেই বিশ্বাস করেন প্রশান্তির আদর্শ স্থল ঢাকুরিয়ার নিপ্পনজান মোয়োহোজি বৌদ্ধ মন্দির
ডিসেম্বর ০৮, ২০২২

মন্দিরের নকশায় জাপানি সংস্কৃতির প্রভাব নির্মিত রয়েছে

এক ঢিলে দুই পাখি মারতে চাইলে শীতকালের পিকনিক স্পট হিসেবে বেছে নিন দুই বাংলার মিলনভূমি টাকি
ডিসেম্বর ০৮, ২০২২

চড়ুইভাতিতে দেখুন নদীর এপারে টাকি ওপারে প্রতিবেশী বাংলাদেশ

লাল নীল সবুজের রঙিন মেলা দেখতে চাইলে পৌঁছে যেতে পারেন ইকো পার্কের বেঙ্গল হস্তশিল্প মেলা
ডিসেম্বর ০৭, ২০২২

রঙিন মেলার সঙ্গে বিভিন্ন মানুষের জীবন বৈচিত্র্যও দেখতে পারবেন 

রাম রাবণের যুদ্ধের সাক্ষী নৈহাটির প্রাচীন মাদরাল বজরংবলীর মন্দির
ডিসেম্বর ০৬, ২০২২

যুদ্ধে ক্লান্ত বীর হনুমান পথ যাত্রাকালে বিশ্রাম নিয়েছিলেন এই স্থানে 

আর দেখা মিলছে না সেই উদ্দীপনা ভরা উপচে পরা ভিড়ের , তীব্র অনিশ্চয়তার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ডায়মন্ড সার্কাস
ডিসেম্বর ০৬, ২০২২

সার্কাসকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারি উদ্যোগের আর্জি

হিংলাজ মাতা মন্দির শক্তিপীঠ ৫১ সতীপীঠ পর্ব ১৪
ডিসেম্বর ০৬, ২০২২

পাকিস্তানের আদরের নানী কি হজ নামে খ্যাত

রাজার হালে থেকে নতুন অভিজ্ঞতার স্বাদ নিতে চাইলে ঘুরে আসুন বলাখানা রাজবাড়ি
ডিসেম্বর ০৫, ২০২২

রাজার হালে চড়ুইভাতি করার অন্যতম সেরা ঠিকানা আছে নবদ্বীপেই

উড়িষ্যার প্রাকৃতিক রত্ন পেটিকার মধ্যে অন্যতম বাগদা সমুদ্র সৈকত
ডিসেম্বর ০৪, ২০২২

ওড়িশার এই সমুদ্র সৈকত শ্রেষ্ঠ ও পরিচ্ছন্ন সৈকত

পরিবারের সঙ্গে কাটান গোটা ১ টি দিন ফলতা পিকনিক স্পটে
ডিসেম্বর ০৩, ২০২২

অসাধারণ পরিবেশের মধ্যে পরিবারের সঙ্গে সানন্দে চড়ুইভাতির ঠিকানা এই পিকনিক স্পট

আশ্চর্য স্থাপত্যে ঘেরা প্রায় ৩০০ বছর পুরোনো টিপু সুলতান শাহী মসজিদ
ডিসেম্বর ০২, ২০২২

কলকাতার বুকেই রয়েছে ঐতিহ্যপূর্ণ এই মসজিদ

দেবী কাত্যায়নীর অকাল বোধনে মেতে উঠেছে জলপাইগুড়ি শহরের রায়কত পাড়ার ভট্টাচাৰ্য পরিবার
ডিসেম্বর ০২, ২০২২

আদি বাসভূমির ঐতিহ্যকে সঙ্গে নিয়ে ৭৬ তম হেমন্ত কালীন দূর্গা পুজোর সূচনা করলেন পরিবারবর্গ

শীতের আমেজকে পরিপূর্ণ করে তোলে রঙিন মেলা রণ উৎসব
ডিসেম্বর ০১, ২০২২

প্ল্যান করুন শীতের ট্যুর আর ঘুরে আসুন এবছরের তাবুর শহর

ভিডিয়ো